আজ: ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, মঙ্গলবার, ৮ ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৫ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী, রাত ১১:২৯
সর্বশেষ সংবাদ
প্রধান সংবাদ, বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের অত্যাধুনিক নতুন দুই জাহাজ আসছে ইতালি থেকে

কোস্টগার্ডের অত্যাধুনিক নতুন দুই জাহাজ আসছে ইতালি থেকে


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১০/০৮/২০১৭ , ৩:২৩ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: প্রধান সংবাদ,বাংলাদেশ


ভোরের খবর ডেস্ক- বাংলাদেশের বিশাল সমুদ্র এলাকায় টহল দিতে ইতালির তৈরি অত্যাধুনিক নতুন দুটি জাহাজ খুব শিগগিরই বাংলাদেশ কোস্টগার্ডে যুক্ত হচ্ছে। একটির নামকরণ করা হয়েছে জাতীয় নেতা আবুল হাসানাত মোহাম্মদ কামরুজ্জামান এবং অন্যটির মোহাম্মদ মনসুর আলী। আগামী ৯ থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে ইতালিয়ান নেভির তৈরি জাহাজ দুটি ৬ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তর করা হবে। প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমুদ্র বিজয়ের ফলে এক লাখ আঠারো হাজার ৮১৩ বর্গ কিলোমিটার সমুদ্রসীমা এলাকায় বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের কার্যক্রম বেড়েছে। বাংলাদেশের বিশাল এ সমুদ্রসীমায় কঠোর নজরদারিসহ টহল দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় চার নেতার নামে বিদেশ থেকে ৪টি অত্যাধুনিক সুপরিসর জাহাজ কেনার সিদ্ধান্ত নেন। ইতালিয়ান নেভির তৈরি চারটি জাহাজের মধ্যে প্রথম দফায় দুটি জাহাজ তাজউদ্দীন আহমদ ও সৈয়দ নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের কাছে সরবরাহ করা হয়েছে। ওই জাহাজ দুটির কমিশনিং করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বাকি জাহাজ দুটি ডিসেম্বর নাগাদ বাংলাদেশে পৌঁছাবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা মানবকণ্ঠকে বলেন, সমুদ্র জয়ের পর বাংলাদেশের বিশাল সমুদ্র এলাকায় বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের তৎপরতা ব্যাপক বেড়েছে। কোস্টাল এরিয়ায় মৎস্য, খনিজ ও প্রাণিজ সম্পদ রক্ষায় প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে অত্যাধুনিক জাহাজ কেনা হয়েছে।

ইতালিয়ান নেভি দ্বিতীয় দফায় তৈরি নতুন জাহাজ দুটি বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করার জন্য ‘হ্যান্ডওভার অ্যান্ড ট্রান্সফার অব টাইটেল সিরিমনি’ করছে। হস্তান্তর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিনের নেতৃত্ব ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ইতালি যাচ্ছেন। অন্য সদস্যরা হলেন- রিয়েল অ্যাডমিরাল এএমএমএম আওরাঙ্গজেব চৌধুরী, এনবিপি, ওএসপি, বিসিজিএম, বিসিজিএমএস, এনডিসি, পিএসসি, ক্যাপ্টেন এম মামুনুর রশীদ, (টিএএস), এএফডব্লিউসি, পিএসসি বিএন, কমান্ডার আবুল হাসনাত মোহাম্মদ শামেম, (টিএসএস), বিজিসিএমএস, পিএসসি, বিএন, ও লে. কমান্ডার মোহাম্মদ তানভির হোসাইন ভূইঞা, (এল), বিএন। তবে এ দলের সঙ্গে নিজস্ব খরচে স্বরাষ্ট্র সচিবের স্ত্রী সৈয়দা ফেরদৌস আরা বেগম যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ কোস্টগার্ড এই চারটি জাহাজ দিয়ে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় অবৈধভাবে মাছ ধরা বন্ধ করাসহ নানা তৎপরতা রোধে দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারবে। পাশাপাশি কোস্টগার্ডকে শক্তিশালী করাসহ এর উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ নিল সরকার।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণী মামলার রায়ে বাংলাদেশের বিপুল বিজয় হয়েছে। নেদারল্যান্ডসের হেগে সালিশি ট্রাইব্যুনালের রায়ে বিরোধপূর্ণ আনুমানিক ২৫,৬০২ বর্গকিলোমিটার সমুদ্র এলাকার মধ্যে ১৯,৪৬৭ বর্গকিলোমিটার সমুদ্র এলাকা বাংলাদেশকে প্রদান করা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের মোট সমুদ্রসীমা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটার। রায়ের ফলে বাংলাদেশ এই এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের বেশি টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সব ধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে বাংলাদেশের।

এর আগে ২০১২ সালে বাংলাদেশ মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণী সংক্রান্ত একই ধরনের মামলার নিষ্পত্তি হয়।

Comments

comments

Close