আজ: ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, মঙ্গলবার, ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৫ রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী, সন্ধ্যা ৬:০২
সর্বশেষ সংবাদ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি, সবিশেষ জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড সেরা ৫০ এর নাম ঘোষণা

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড সেরা ৫০ এর নাম ঘোষণা


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১০/১৫/২০১৭ , ১০:৫০ অপরাহ্ণ | বিভাগ: প্রেস বিজ্ঞপ্তি,সবিশেষ


Spread the love
Spread the love

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এবং সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের ট্রাস্টি নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, ‘ইয়ং বাংলা যখন তার কার্যক্রম শুরু করে তখন লক্ষ্য ছিলো তরুণদের জন্য এক প্লাটফর্ম তৈরি করা। বর্তমানে আমাদের সঙ্গে সংযুক্ত আছে ১ লাখ ২০ হাজারের বেশি মানুষ। আমাদের লক্ষ্য দেশের ৪ কোটি তরুণকে এই প্লাটফর্মের সঙ্গে সংযুক্ত করা।’

 

রবিবার ধানমন্ডির একটি রেস্তরায় জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের সংবাদ সম্মেলনে কথাগুলো বলেন তিনি।

 

বিপু জানান, ২০১৫ সালে এই অ্যাওয়ার্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয় তরুণদের অনুপ্রেরণা প্রদানের জন্য। সেবার আমরা ৩০ জনকে বাছাই করেছিলাম। এবার ১৩০০ আবেদন থেকে ৫০ জনকে বাছাই করা হয়েছে।

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড কোন রাজনৈতিক বিষয় নয় বলে জানিয়ে তিনি বলেন, এখানে তরুণদের নিজ সমাজে অবদানের জন্য পুরস্কৃত করা হচ্ছে, যেন তাদের দেখে অন্যান্য তরুণেরা সমাজ গঠনের কাজে অনুপ্রেরণা পায়।

সংবাদ সম্মেলনে সংসদ সদস্য ও ইয়ং বাংলার আহ্বায়ক নাহিম রাজ্জাক বলেন, আমরা ১৩০০ আবেদন পাওয়ার পর তার থেকে ১০০ জনকে বাছাই করেছি এবং মাঠ পর্যায়ে গিয়ে তাদের কার্যক্রম দেখে এসেছি। এভাবেই ৫০ জনকে বাছাই করা হয়েছে। আগামী ২০ ও ২১ অক্টোবর আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই বাছাইকৃত ৫০ জনের মধ্য থেকে ৩০ জনের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

এই ৫০ জনের পাশাপাশি দেশ ও সমাজের প্রতি অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবেন ১০০ জন তরুণ। তাদের নিজের প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে অনুষ্ঠানে কথা বলারও সুযোগ পাবেন তারা। এরপর ২১ অক্টোবর বাছাইকৃত ৫০ জন তরুণ ও তাদের প্রতিষ্ঠানকে প্রদান করা হবে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড। সেখানে উপস্থিত থাকবেন দেশের স্বনামধন্য ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা। নিজ হাতে বিজয়ীদের পুরস্কার প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। এই অয়োজনকে ইয়ং বাংলার কোন পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান হিসেবে দেখছেন না সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) কার্যনির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস। তিনি বলেন, এটি শুধু পুরস্কার বিতরণী বা ভাল কাজের স্বীকৃতি দেয়ার একটি আয়োজন। বরং এর মাধ্যমে দেশের তরুণ উদ্যোক্তারা অনুপ্রেরণা লাভ করে। দেশ গঠনের কাজে তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে সামনে এগিয়ে আসার প্রেরণা পান।

এবার সামাজিক উন্নয়ন, সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, ক্রীড়া উন্নয়নসহ আরও বেশকিছু বিষয়কে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। এবার পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ, সমাজ থেকে যে কোন ধরনের নিষ্ঠুরতা এবং সহিংসতা দূরীকরণ এবং মাদক থেকে তরুণদের দূরে রাখার কার্যক্রমে সহায়তা করেছে। এগুলোর পাশাপাশি শিশুদের সামাজিক সহায়তা প্রদান, স্কুলে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সহায়তা প্রদান, পথ শিশু, শিশু বা প্রতিবন্ধীদের সহায়ক কার্যক্রম, অসহায় নারী, বৃদ্ধ, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, শরণার্থী, হত-দরিদ্রও সমাজের অসহায়দের সহায়ক কার্যক্রমের জন্যও পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।

এ ছাড়া বেকারত্ব দূরীকরণের উদ্যোগ গ্রহণ, দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি হ্রাস কার্যক্রম, টেকসই আবহাওয়া ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমসহ তরুণদের ক্রীড়া ও শারীরিক শিক্ষা বিষয়কে পুরস্কারের জন্য বিবেচনায় রাখা হয়েছে। জানা গেছে, এবারের জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের আবেদনপত্র আহ্বানের পর দেশের ৪৪টি শহরে এবং ৩২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চলে ক্যাম্পেইন। আয়োজনের শুরু থেকেই আশাতীত সারা পায় ইয়ং বাংলা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এক হাজার ৩০০ প্রতিষ্ঠানের আবেদন আসে।

১৯ আগস্ট আবেদনের সময়সীমা শেষ হলে শুরু হয় বাছাই কার্যক্রম। প্রাথমিক পর্যায়ে পাওয়া এক হাজার ৩০০ আবেদনপত্র থেকে বাছাই করা হয় ১০০টি। এরপর শুরু হয় তাদের প্রতিষ্ঠানগুলোতে যাওয়া। সমাজে এ প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রভাব এবং কার্যকারিতা বিবেচনায় এনে ৫০টি প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়।

এর আগে ২০১৫ সালে প্রথমবার জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের আয়োজনে এক হাজার ৫০০ আবেদন থেকে ৩০ জন তরুণ ও তাদের প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত করা হয়। তরুণদের চাকরির সুযোগ সৃষ্টি, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ, বয়স্ক শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের জন্য এই পুরস্কার পান তারা। বিগত দুই বছরে এই ৩০ জন পুরস্কার বিজয়ীদের নিয়ে নানা আয়োজনও করে ইয়ং বাংলা।

ইয়ং বাংলা ও মাইক্রোসফট বাংলাদেশের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড জয়ীদের ১০ জন পান কম্পিউটার ল্যাব। এর ফলে স্থানীয় পর্যায়ে তারা আইসিটি শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে তরুণদের কর্মক্ষম করে তুলতে পারছেন। এ্যাওয়ার্ড জয়ী কয়েকজনের পাশাপাশি ৯ সদস্যের তরুণ কর্মীদের একটি দল চীন সফরের সুযোগ পান। দুই দেশের তরুণদের মাঝে সেতুবন্ধন তৈরি ছিল এই সফরের উদ্দেশ্য। এছাড়া জয় বাংলা ইয়ুথ এ্যাওয়ার্ড বিজয়ী তিনজনসহ ৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফর করে।১০০ তরুণ কর্মীর ভারত সফর কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তারা ভারতে যাওয়ার সুযোগ পান। দুই দেশের তরুণদের মাঝে সেতুবন্ধন তৈরি এই সফরের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

জয় বাংলা অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন করা বিভিন্ন প্লাটফর্মের উদ্যোক্তারা সন্তোষ প্রকাশ করে বলছেন, দেশে এমন আর কোন তারুণ্যের প্লাটফর্মের নেই যা তরুণদের সম্ভাবনাময় সব উদ্যোগকে সমন্বিতভাবে উন্নয়নের জন্য এভাবে সহায়তা করছে।

২০১৪ সালে তারুণ্যের প্লাটফর্ম হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ইয়ং বাংলা। নীতি-নির্ধারকদের কাছ পর্যন্ত তরুণদের চাওয়া-পাওয়া পৌঁছে দেয়ার একটি মাধ্যম হিসেবে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। আর এ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে দেশের তরুণ উদ্যোক্তা ও সমাজ পরিবর্তনে ভূমিকা রাখা তরুণদের সবার কাছে পরিচিত করে তোলার জন্য কাজ করে যাচ্ছে ইয়ং বাংলা।

Share

Comments

comments

Close