আজ: ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, শুক্রবার, ১১ ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৮ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী, সকাল ৬:৩৮
সর্বশেষ সংবাদ
রাজনীতি ঢাকা দক্ষিণ মহানগর আ.লীগের সভায় হাতাহাতি

ঢাকা দক্ষিণ মহানগর আ.লীগের সভায় হাতাহাতি


পোস্ট করেছেন: News Desk | প্রকাশিত হয়েছে: ১১/০১/২০১৭ , ৮:০২ অপরাহ্ণ | বিভাগ: রাজনীতি


জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগরের বর্ধিতসভায় হট্টগোল ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে অস্থায়ী কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ এবং সিটি করপোরেশন মেয়র সাঈদ খোকনপন্থিদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, গতকালের বর্ধিত সভায় দক্ষিণ সিটি করপোরশনের ৩৮নং ওয়ার্ড কমিশনার আবু আহমেদ মান্নাফির বক্তব্যকে কেন্দ্র করেই হট্টগোলের সূত্রপাত। শাহে আলম মুরাদকে উদ্দেশ করে মান্নাফি তার বক্তব্যে বলেন, গত ২৬ অক্টোবর মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আমার গায়ের কাপড় ছিঁড়ে ফেলে মঞ্চ থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়। যারা মুক্তিযুদ্ধের অনুসারী তাদের অনেককেই সেখানে দাঁড়াতে দেওয়া হয়নি। বরং ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেওয়া হয়।

তার এ বক্তব্যের পরই শাহে আলম মুরাদ গ্রুপের নেতাকর্মীরা ‘ভুয়া’ ‘ভুয়া’ স্লোগান  তোলেন। এ সময় অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ মাইক্রোফোনের সামনে এসে বলেন, একটা বড় দলে মতবিরোধ থাকা স্বাভাবিক। অনেক অভিযোগ থাকতে পারে। তবে একটি উন্মুক্ত অনুষ্ঠানে দলের নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে কথা বলা দলের শৃঙ্খলার পরিপন্থি। এটা ঠিক না।
গোলাপের এই বক্তব্যের পরই পরিবেশ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে নিচে অবস্থানরত সাঈদ খোকনের অনুসারী ২০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন একটি মিছিল নিয়ে তখন সভাস্থলে যোগ দিতে চাইলে আগতদের উদ্দেশে শাহে আলম মুরাদ বলেন, ভেতরে জায়গার অভাব আছে। দয়া করে আপনারা বাইরে বসুন। কিন্তু তার কথা না মেনে তারা দরজা ঠেলে ভেতরে প্রবেশ করতে চেষ্টা করলে আবারও বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হয়। এক পর্যায়ে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়। পরে দায়িত্বরত পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
শাহে আলম মুরাদ বলেন,  যারা উগ্র আচরণ করছে, তারা হয়তো ভুলে গেছে যে, এটা আওয়ামী লীগ। এখানে আবেগ নয় কাজের মূল্য আগে। যারা উগ্র আচরণ করছে, সে দায়ও তাদেরই বহন করতে হবে।
এ বিষয়ে ঢাকা বিভাগের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন,  যারা ক্ষমতার রাজনীতি করে, রাজনীতি থেকে লাভবান হতে চায়, আদর্শিক রাজনীতির সঙ্গে যারা পরিচিত নন তারাই এমনটি করতে পারে। কিন্তু আওয়ামী লীগে এমনটা প্রত্যাশিত নয়। আমরা চাইব শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের সব নেতাকর্মী সরকারের যে সাফল্য হয়েছে তা জনগণের সামনে তুলে ধরবে, দলের জন্য কাজ করবে।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

Comments

comments

Close