আজ: [english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয়, প্রধান সংবাদ সাভার ও মানিকগঞ্জে পানির ‘খনি’

সাভার ও মানিকগঞ্জে পানির ‘খনি’


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: 11/22/2017 , 6:01 am | বিভাগ: জাতীয়,প্রধান সংবাদ



ঢাকার সাভারের ভাকুর্তায় একটি পানির খনি পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী তাকসিম এ খান।

তিনি বলেন, ভূগর্ভের পানি উত্তোলনের জন্য সাভারে একটি পানির খনি পাওয়া গেছে। হিমালয় থেকে একটি চ্যানেল হয়ে ভাকুর্তায় এসে পানি জমা হচ্ছে। গভীর নলকূপের মাধ্যমে সেই খনি থেকে প্রতিদিন ১৫ কোটি লিটার পানি উত্তোলন করা হবে। পানি উত্তোলন করলেও সেখানে শূন্যতা সৃষ্টি হবে না। হিমালয়ের পানি চ্যানেল দিয়ে এসে সেই শূন্যস্থান ভরাট করবে।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর কাওরান বাজারে ওয়াসা ভবনে ‘ঢাকা ওয়াসার সার্বিক অগ্রগতি : আগামীর কর্ম পরিকল্পনা’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

এতে ওয়াসার প্রধান প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আক্তারুজ্জামান ও প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মোস্তফা তারেক উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়াসা এমডি গত আট বছরে তার নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের বিস্তারিত তুলে ধরেন এবং আগামীতে তিনি আরো যা করতে চান সেগুলোও উল্লেখ করেন।

ওয়াসার কর্মকর্তারা বলছেন, এই দুটো ভান্ডারের উৎস হচ্ছে হিমালয় পর্বতমালার একটি হিমবাহ। তারা দাবি করছেন, সেখানে প্রায় ৪০ বছর ব্যবহার করার পানি জমা আছে এবং তা এখনো আসছে অর্থাৎ ‘পুনর্ভরণ’ হচ্ছে, তাই এই দুটো খনির পানি কখনোই ফুরাবে না।

ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম খান বলেন, ২০১৮ সালের মার্চ নাগাদ ঢাকার মিরপুর এলাকায় এই খনির পানি সরবরাহ শুরু হবে। ঢাকার কাছে সাভারের তেঁতুলঝরা ভাকুর্তা এলাকায় একটা পানির খনি আছে। ২০০৯ সালে ঢাকার কাছে সাভার ও মানিকগঞ্জে দুটো ‘একুইফার’ বা ভূগর্ভস্থ পানির ভান্ডারের সন্ধান পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, এরকমই আরেকটি পানির ভাণ্ডার আছে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে। এই ইকুইফার আছে প্রায় ৬০০ ফিট নিচে এবং এর বিস্তৃতিও অনেকখানি। সেখানে প্রায় ৪০ বছর ব্যবহার করার মতো পানি জমা আছে, যদি ১৫/২০ কোটি লিটার করে তা উত্তোলন করা হয়।

এ জরিপ ২০০৯-১০ সালের মধ্যেই শেষ হয় এবং তখন সিদ্ধান্ত হয় যে এই পানি মিরপুরে পাইপলাইন দিয়ে মিরপুরে নিয়ে আসা হবে, কারণ সেখানে পানির স্তর নেমে যাচ্ছে।
এ পানি সম্পূর্ণই খাবার উপযুক্ত তবে এতে আয়রনের মাত্রা বেশি তাই সেটা দূর করার জন্য সেখানে একটা প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ঢাকা ওয়াসা ইতিমধ্যেই ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরতা কমিয়ে মাটির ওপরের উৎসজাত পানির দিকে যাচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে ঢাকার ৭০ ভাগ পানি মাটির ওপরের উৎস থেকে আসবে- যা পরিবেশ বান্ধব।

আগামী বছর দু-তিন ঘণ্টার বেশি সময় নগরীতে পানি জমে থাকবে না। ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনা প্রসঙ্গে তাকসিম এ খান বলেন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা সাত হাতে থাকবে না। সিটি করপোরেশন, ওয়াসা বা কার হাতে যাবে সে ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত না হলেও দ্রুতই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

খাল ভরাট ও দখল সম্পর্কে বলেন, খালগুলো দখলমুক্ত করে রাখার পর আবারো বেদখল হয়ে যায়। ওয়াসা বিষয়টি দেখভাল করছে। খালগুলোর পানিপ্রবাহ নিশ্চিত করছে ওয়াসা। এ ক্ষেত্রে ওয়ার্ড কাউন্সিলররাও সহযোগিতা করছেন।

তাকসিম এ খান বলেন, ২০০৯ সালে যখন ঢাকা ওয়াসার দায়িত্ব গ্রহণ করি, তখন ঢাকা ওয়াসার খুবই খারাপ অবস্থা ছিল। পানির চরম সঙ্কট ছিল। ওই সময় সুষ্ঠু পানি ব্যবস্থাপনা করতে সেনাবাহিনীর সহায়তা নেয়া লাগত। ঢাকার জনপ্রতিনিধিদের পানি সঙ্কটের কারণে জনরোষেরও শিকার হতে দেখা গেছে। বিগত আট বছরে ঢাকা ওয়াসায় পানির উৎপাদন কয়েক গুণ বেড়েছে। এখন চাহিদার তুলনায় উৎপাদন বেশি হয়। এ কারণে পানির কোনো সঙ্কট নেই।

তবে সরবরাহ লাইনের কারণে নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে সাময়িক সমস্যা দেখা দেয়। সেসব সমস্যাও বিকল্পভাবে সমাধান করা হচ্ছে। বর্তমানে ঢাকা ওয়াসা দক্ষিণ এশিয়াসহ পৃথিবীর অনেক শহরের তুলনায় টেকসই পানি ব্যবস্থাপনায় এগিয়ে রয়েছে। আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছ থেকে এর স্বীকৃতিও মিলেছে।

Comments

comments

Close