আজ: ২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ইং, সোমবার, ৯ মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৬ জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী, সকাল ১০:২৩
সর্বশেষ সংবাদ
প্রবাস ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতিতে দুবাইয়ে আনন্দ উৎসব

৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতিতে দুবাইয়ে আনন্দ উৎসব


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/১১/২০১৭ , ৪:৫৭ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: প্রবাস


জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার’এ অর্ন্তভুক্তি এবং বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি উপলক্ষ্যে শারজাহর পাঁচ তারকা হোটেল র‌্যাডিসন ব্লু-তে আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়। দুবাইেয়র বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আনন্দ উৎসবের শুরুতে র‌্যাডিসন ব্লু হোটেল প্রাঙ্গণে একটি আনন্দ শোভাযাত্রারও আয়োজন করা হয়। দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল এর কনসাল জেনারেল এস. বদিরুজ্জামানের নেতৃত্বে আনন্দ শোভাযাত্রায় কনস্যুলেট জেনারেলের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এবং শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি অংশগ্রহণ করেন।
আনন্দ অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে পবিত্র কোরান তেলাওয়াত, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ প্রদর্শন ও আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনায় অংশ নেন দুবাই ও উত্তর আমিরাতের প্রবাসী নেতৃবৃন্দ। আলোচকগণ প্রত্যেকেই জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভের পেছনে বর্তমান সরকার এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেন। একই সাথে তাঁরা এই ভাষণটি নিয়ে আরও গবেষণা করার আহ্বান জানান।
 
কনসাল জেনারেল এস. বদিরুজ্জামান তাঁর বক্তব্যে বলেন, এই ভাষণটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আমাদের দেশ গড়ার কাজে স্পৃহা যোগাবে। তিনি এ অজর্নের জন্য প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়  ও ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বলেন, এই অর্জনকে আরও প্রচারের জন্য স্থানীয় পত্রিকায় ও অন্যান্য মাধ্যমে এই ভাষণটির স্বীকৃতির বিষয়ে প্রবাসীদের লেখালেখি করার আহ্বান জানান এবং এ বিষয়ে সকল প্রকার সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে দেশাত্মবোধক একক ও দলীয় সঙ্গীত, একক ও দলীয় নৃত্য, কবিতা আবৃত্তি ও ছড়া পরিবেশণ করা হয়। আনন্দ অনুষ্ঠানে তিনশতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি অংশগ্রহণ করেন।

Comments

comments

Close