আজ: ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ইং, বৃহস্পতিবার, ১১ মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৯ জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী, দুপুর ১২:১৪
সর্বশেষ সংবাদ
আন্তর্জাতিক কাতালোনিয়া নির্বাচন : জয়ের পথে স্বাধীনতাপন্থিরা

কাতালোনিয়া নির্বাচন : জয়ের পথে স্বাধীনতাপন্থিরা


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১২/২২/২০১৭ , ৯:০৫ অপরাহ্ণ | বিভাগ: আন্তর্জাতিক


Spread the love
Spread the love

কাতালোনিয়া নির্বাচন : জয়ের পথে স্বাধীনতাপন্থিরা

স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালোনিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যাচ্ছে স্বাধীনতাপন্থি দলগুলো। আঞ্চলিক নির্বাচনে জয় পেলেও কাতালোনিয়ায় কারা সরকার গঠন করার অধিকার পাচ্ছে, তা এখনও নিশ্চিত নয়।

গত বৃহস্পতিবার কাতালোনিয়া এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। তবে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ফলাফল না পাওয়া গেলেও স্পেন থেকে বিচ্ছিন্ন হতে চাওয়া দলগুলো আঞ্চলিক পার্লামেন্টের অর্ধেকেরও বেশি আসনে জয়ের পথে রয়েছে।

সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, ভোটগ্রহণ শেষে গণনায় দেখা গেছে বরখাস্ত হওয়া কাতালান প্রেসিডেন্ট কার্লেস পুজদেমন্তের টুগেদার ফর কাতালোনিয়া (জেএক্সক্যাট), স্বাধীনতাপন্থি রিপাবলিকান লেফট অব কাতালোনিয়া (ইআরসি) ও পপুলার পার্টি ৭০টির মতো আসনে এগিয়ে রয়েছে।

আর স্পেনের সঙ্গে একতাপন্থি সিটিজেনস পার্টি (সিউদাদানোস) ২৫ শতাংশ ভোট পেয়ে আঞ্চলিক পার্লামেন্টের মাত্র ৩৭টিতে জয় পাচ্ছে।

চলতি বছরের অক্টোবরে স্বাধীনতার প্রশ্নে এক গণভোটের সূত্র ধরে মাদ্রিদ সরকারের সঙ্গে স্পেনের সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী অঞ্চলটির বিবাদে জড়িয়ে পড়ে।

স্পেন সরকার তাদের ওই গণভোটকে অবৈধ ঘোষণা দেয়। ভোটে স্বাধীনতার পক্ষে রায় পড়ায় ২৭ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয় কাতালান আঞ্চলিক পার্লামেন্ট। এর প্রতিক্রিয়ায় কাতালোনিয়ার স্বায়ত্তশাসনের অধিকার কেড়ে নেয় মাদ্রিদ। আঞ্চলিক পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করে সেখানে নতুন নির্বাচনের ডাক দেওয়া হয়।

স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকারে ক্ষমতাসীন পপুলার পার্টি (পিপি) মাত্র তিনটি আসনে এগিয়ে আছে। গত পার্লামেন্টেও দলটির আসন ছিল ১১টি। নির্বাচনে বেশি আসনে এগিয়ে থাকা পুজদেমন্তে তার সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘কাতালান প্রজাতন্ত্র জয়ী হয়েছে, স্পেন পরাজিত হয়েছে। এখন সংশোধন, পুনর্বিবেচনা ও পুনর্বিন্যাসের সময় এসেছে।

এদিকে বিদ্রোহ ও রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে স্পেনের আদালতে পুজদেমন্তের বিরুদ্ধে মামলা চলছে। একই অভিযোগে কারাগারে রয়েছেন ইআরসির প্রধান জাঙ্কুয়েরেস।

ভোটের ফল নিয়ে এখনও কেন্দ্রীয় সরকারের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) জানিয়েছে, আঞ্চলিক নির্বাচনের ভোটের ফল যাই হোক না কেন, কাতালোনিয়া প্রসঙ্গে তাদের অবস্থান একই থাকবে।

Share

Comments

comments

Close