আজ: ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, শুক্রবার, ১১ ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৮ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী, সকাল ৬:৩৫
সর্বশেষ সংবাদ
খুলনা বিভাগ, প্রধান সংবাদ, বিভাগীয় সংবাদ টানা শৈত্য প্রবাহের কবলে যশোর

টানা শৈত্য প্রবাহের কবলে যশোর


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০১/১৬/২০১৮ , ১:১৫ অপরাহ্ণ | বিভাগ: খুলনা বিভাগ,প্রধান সংবাদ,বিভাগীয় সংবাদ


টানা ১২ দিনের মৃদু শৈত্য প্রবাহে অচল হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন। শীতের দাপটে থেমে গেছে মানুষের কর্মচাঞ্চল্য।
যশোর আবহাওয়া অফিসের কর্পোরাল এনামুল হক জানান, গতকাল সকালে যশোরে সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
শীতের সাথে প্রচন্ড কুয়াশা থাকায় যান চলাচলও প্রায় স্থবির। ঘন কুয়াশার কারণে দিনের বেলায়ও হেডলাইট জ্বালিয়ে ধীরগতিতে চলতে হচ্ছে। অন্যদিকে প্রচন্ড শীতে সবচেয়ে কষ্ট পাচ্ছে শ্রমজীবী সাধারণ মানুষ। একান্ত বাধ্য না হলে কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না।
আবার শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই কাউকে না কাউকে ভর্তি হতে হচ্ছে হাসপাতালে। এজন্য হাসপাতালেও ভিড় নিয়মিত বিষয়ে পরিনত হয়েছে।
এ ছাড়া শীত থেকে রক্ষা পেতে অনেকেই ভিড় করছেন পোশাকের মার্কেটে। খুঁজছেন সামর্থ্য অনুযায়ী শীতের পোশাক।
প্রসঙ্গত, গত ৩ জানুয়ারি থেকে এ অঞ্চলে তাপমাত্রা কমতে শুরু করে।
এদিকে খুব তাড়াতাড়ি শীত থেকে মুক্তি পাচ্ছে না দেশবাসী। তবে দিন ও রাতের তাপমাত্রায় কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেড়েছে। আবহাওয়া অফিসের ভাষ্যে, জানুয়ারি জুড়েই শীতের তীব্রতা অব্যাহত থাকবে। এর মধ্যেই আগামী সপ্তাহে একটি শৈত্যপ্রবাহ দেখা মিলতে পারে।
আবহাওয়াবিদ বজলুল রশিদ বলেন, জানুয়ারি বাংলা মাঘ মাস। এটি সর্বোচ্চ শীতের মাস। ফলে গোটা জানুয়ারিতেই তীব্র শীত থাকবে।
তিনি বলেন, তবে আগের চেয়ে তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেড়েছে। কিন্তু, ঘন কুয়াশায় সূর্যের তাপ ভূ-ভাগে পৌঁছতে পারছে না। ফলে দিনের তাপমাত্রা (সর্বোচ্চ তাপমাত্রা) খুব একটা পরিবর্তন হচ্ছে না। দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান কমে যাচ্ছে। সেজন্যই মানুষ বেশি শীত অনুভব করছেন।
বজলুল রশিদ আরো বলেন, বাতাস এই পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটাচ্ছে। তীব্র কুয়াশা আরো বেশ কিছুদিন অব্যাহত থাকবে।
আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১৭ জানুয়ারি বুধবারের পর থেকে স্বাভাবিক হতে পারে দেশের তাপমাত্রা। তবে আগামী ২০ জানুয়ারির পর আবারো শৈত্যপ্রবাহ শুরু হবে।
আবহাওয়া বিভাগের দাফতরিক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, টাঙ্গাইল, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। বিরাজমান শৈত্যপ্রবাহ পরিস্থিতি দেশের আরো কিছু এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে।
এছাড়া মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং তা কোথাও কোথাও দিনের বেলা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। রোববার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
জানুয়ারি মাসের দীর্ঘমেয়াদি আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এ মাসে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে একটি মাঝারি (৬-৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) বা তীব্র (৪-৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস) ধরনের শৈত্যপ্রবাহ এবং অন্যত্র ১-২টি মৃদু (৮-১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) বা মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। তবে সার্বিকভাবে এ মাসের গড় তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকতে পারে।

Comments

comments

Close