আজ: [english_date], [bangla_day], [bangla_date], [hijri_date], [bangla_time]
সর্বশেষ সংবাদ
আন্তর্জাতিক ভেনিজুয়েলায় পালাতে গিয়ে ৬৮ হাজতি নিহত

ভেনিজুয়েলায় পালাতে গিয়ে ৬৮ হাজতি নিহত


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: 03/30/2018 , 12:52 am | বিভাগ: আন্তর্জাতিক



ভেনিজুয়েলায় দাঙ্গা ও আগুন লাগার ঘটনায় পুলিশের হাজত থেকে পালাতে গিয়ে ৬৮ জন নিহত হয়েছে। গত বুধবার দেশটির কারাবোবো রাজ্যের পুলিশ সদর দপ্তরে এ ঘটনা ঘটে। প্রধান কৌঁসুলি তারেক উইলিয়াম সাব টুইটারে বলেছেন, ঘটনার তদন্তে চারজন কৌঁসুলি নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাঁরা কাজ শুরু করেছেন।

মানবাধিকার সংগঠন ‘এ উইনডো অন ফ্রিডমের’ প্রধান কার্লোস নেইতো বলেন, হাজত ভেঙে পালাতে গিয়ে হাজতিরা মাদুরে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং নিরাপত্তারক্ষীদের বন্দুক চুরি করে। পরে এ আগুন তীব্রবাবে ছড়িয়ে পড়ে। অনেক দগ্ধ হয়ে, অনেকে ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে মারা গেছে।  নিহতদের মধ্যে বেশিরভাগই হাজতি। তবে  নিহত ব্যক্তিদের মাঝে  থানায় ঘুরতে আসা দুই নারী রয়েছেন।

কারাবোবো রাজ্যের গভর্নর রাফায়েল লাকাভা টুইটারে বলেন, এ ঘটনার কারণ ও এর জন্য দায়ী কে বা কারা, তা বের করতে গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হবে। তিনি এই ঘটনাকে ভীতিকর বলে অভিহিত করেন। নিহতদের জন্য দুঃখও প্রকাশ করেন তিনি।

আগুন লাগার খবর ছড়িয়ে পড়লে হাজতিদের স্বজনরা ছুটে আসে। তারা পুলিশ সদর দপ্তরে জোর করে ঢোকার চেষ্টা করে। তবে তাঁদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। এমন কি অভিযোগ পাওয়া গেছে, ভেতরে আটক থাকা স্বজনদেরও কোনো খোঁজ জানানো হয়নি তাঁদের। বিষয়টি তাঁদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ তৈরি করে। এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত স্বজনরা পাথর ছুড়তে শুরু করলে এক পুলিশ সদস্য আহত হন। পরে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। স্বজনরা সরে যেতে বাধ্য হয়।

টুইটারে পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ঘটনাস্থল ঘিরে রাখা পুলিশদের কাছে তথ্য জানতে চাইছে স্বজনরা। স্থানীয় গণমাধ্যমকে দোরা ব্লানকো নামের এক নারী বলছেন, ‘আমি এক অভাগী মা। আমার ছেলে এক সপ্তাহ ধরে এখানে আছে। তারা (পুলিশ) আমাকে কোনো কিছুই বলছে না।’

ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি বন্দি রাখার কারণে ভেনিজুয়েলার কারাগারগুলোর কুখ্যাতি আছে। বন্দিদের কাছে অস্ত্র ও মাদক পাওয়া যায়। সেখানে দাঙ্গার ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে।  জেলে দাঙ্গা বা কয়েদি পালানোর ঘটনাও নতুন নয়। সরকারি কর্মকর্তা জেসাস সানতানদার বলেন, এ ঘটনায় কারাবোবো রাজ্যে শোক পালন করা হবে। কতজন নিহত হয়েছে, তা ফরেনসিক চিকিৎসকরা নির্ণয় করছেন। তবে আশংকা রয়েছে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়বে।

একজন পুলিশ কর্মকর্তার পায়ে গুলি লেগেছে। তবে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল। আর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিভিয়েছেন।

দশকের পর দশক ধরে ভেনিজুয়েলার অনেক কারাগার অরাজক অবস্থার মধ্য দিয়ে চলছে। সেখানে আইন নেই বললেই চলে। কয়েদিরা প্রকাশ্যে মেশিনগান ও গ্রেনেড চালায় এবং মাদক নেয়। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স।

Comments

comments

Close