আজ: ১৯ জুলাই, ২০১৮ ইং, বৃহস্পতিবার, ৪ শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৬ জিলক্বদ, ১৪৩৯ হিজরী, রাত ৩:৪১
সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ, প্রধান সংবাদ পাঁচ জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৬

পাঁচ জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৬


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ০৭/১১/২০১৮ , ১১:২২ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: অপরাধ,প্রধান সংবাদ



ঢাকা, কুষ্টিয়া, লক্ষ্মীপুর, যশোর ও নাটোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৬ জন নিহত হয়েছেন।
মঙ্গলবার রাত ও আজ বুধবার ভোরে এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

ঢাকা : ঢাকার কেরানীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মো. নুরা ওরফে নুরু (৪৫) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।
আজ বুধবার ভোরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ডায়মন্ড মেলামাইন কারখানার সামনে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশের দাবি, নিহত নুরু একজন মাদক ব্যবসায়ী।
কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, ঘটনাস্থল থেকে নুরুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার মিরপুরে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী ফুটু ওরফে মোন্না (৩৫) ও রাসেল আহম্মেদ (৩০) নামের দুজন নিহত হয়েছেন।
র‌্যাবের দাবি, এ ঘটনায় তাদের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।
বুধবার ভোররাতে মিরপুর উপজেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনান্দ বাজার বালুচরসংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে এ বন্দুকযুদ্ধ ঘটে।
নিহত ফুটু ওরফে মোন্না রাজারহাট মোড় এলাকার মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে ও রাসেল আহম্মেদ একই এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে।
র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মোহাই মিনুল জানান, মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একদল মাদক ব্যবসায়ী মিরপুর উপজেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনান্দ বাজার বালুচরসংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য কর গুলি ছোড়ে। জবাবে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে বন্দুকযুদ্ধের এক পর্যায়ে দুইজন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকে। তাদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় অন্য মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি দেশি পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে।
র‌্যাব দুই মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করতে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।
লক্ষ্মীপুর : জেলায় রায়পুরে আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাকালে পুলিশ ও ডাকাত দলের মধ্যে গোলাগুলিতে সুরাইয়া সোহেল নামে এক যুবক নিহত হয়েছে।
বুধবার ভোররাতে রায়পুর উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের সিংহের পোল এলাকায় এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।
ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, নয় রাউন্ড কার্তুজ ও ৩০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ।
নিহত সোহেল রায়পুরের উত্তর দেনায়েতপুর গ্রামের মৃত মুনাফের ছেলে। তার বিরুদ্ধে হত্যা ও মাদকের ৬টি মামলাসহ ২২টি মামলা রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।
রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া জানান, লক্ষ্মীপুর সদরের ঝুমুর সিনেমা হল এলাকা থেকে ২২ মামলার আসামি সুরাইয়া সোহেলকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আটক করা হয়। পরে রাতে তাকে নিয়ে অভিযানে গেলে তার সহযোগীরা তাকে ছিনিয়ে নিতে গুলি চালায়, পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এসময় তাদের গুলিতে সোহেল গুলিবিদ্ধ হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ সময় এসআই মোতাহের হোসেন ও গোলাম মোস্তফা নামে দুই পুলিশ সদস্য আহত হন।
ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। গোলাগুলিতে পুলিশের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।
নিহতের মরদেহ লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
যশোর : যশোরের মণিরামপুরে দুই দল ডাকাতের বন্দুকযুদ্ধে অজ্ঞাত একজন নিহত হয়েছেন।
আজ বুধবার ভোরে যশোর-রাজগঞ্জ সড়কের কোদলাপাড়া জামতলা এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
ঘটনাস্থল অস্ত্র, গুলি ও বোমা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
যশোরের মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোকাররম হোসেন জানান, খেদাপাড়া ফাঁড়ি পুলিশ বুধবার ভোরে যশোর-রাজগঞ্জ সড়কের কোদলাপাড়া জামতলা এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে গুলিবিদ্ধ একটি লাশ উদ্ধার করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুই দল ডাকাতের বন্দুকযুদ্ধে ওই যুবক নিহত হয়েছে। তবে তার নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি। পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।
ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়েছে।
নাটোর : নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।
গতকাল মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার বাহিমালী এলাকার কাঁচা রাস্তায় এ কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
র‌্যাবের দাবি, ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ওসমান গণি একজন মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন।
র‌্যাব-৫ নাটোর ক্যাম্পের কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা বলেন, রাতে র‌্যাবের একটি দল উপজেলার বাহিমালী এলাকার কাঁচা রাস্তায় টহল দিচ্ছিল। এ সময় তারা টর্চ জ্বালিয়ে কয়েকজন লোককে আনাগোনা করতে দেখেন। র‌্যাবকে দেখে লোকগুলো পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তখন র‌্যাব সদস্যরা তাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। কিন্তু তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি চালান। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। কিছুক্ষণ গোলাগুলির পর সেখানে গুলিবিদ্ধ একজনকে পড়ে থাকতে দেখেন র‌্যাব সদস্যরা। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ গিয়ে ওসমানকে শনাক্ত করে।
এ ঘটনায় মনজুর আহমেদ ও এনামুল হক নামের দুই র‌্যাব সদস্যও আহত হন বলে দাবি করেছে র‌্যাব।
ঘটনাস্থল থেকে একটি ৭.৬২ বিদেশি পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি ভর্তি একটি ম্যাগাজিন, পিস্তলের গুলির একটি খালি খোসা, সাদা পলিথিনের প্যাকেটে ৪১০ গ্রাম হেরোইন, নগদ এক হাজার চারশত দশ টাকা, একটি চার্জার লাইট, দুইটি গ্যাস লাইট, একটি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়।

Comments

comments

Close