আজ: ২৬ আগস্ট, ২০১৯ ইং, সোমবার, ১১ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৬ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী, দুপুর ১:৪১
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ, বাংলাদেশ, বিশেষ প্রতিবেদন শাহজাদপুরে হাজার হাজার হেক্টর মাশকালাইয়ে মারাত্মক কাটই পোকা, কৃষকেরা দিশেহারা

শাহজাদপুরে হাজার হাজার হেক্টর মাশকালাইয়ে মারাত্মক কাটই পোকা, কৃষকেরা দিশেহারা


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: ১১/২৪/২০১৮ , ৬:৩০ অপরাহ্ণ | বিভাগ: জেলা সংবাদ,বাংলাদেশ,বিশেষ প্রতিবেদন


Spread the love

ফারুক হাসান কাহার, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : শাহজাদপুর দুগ্ধশিল্প এলাকা হিসেবে খ্যাত হওয়ার কারণে এ অঞ্চলে গো-সম্পদে সমৃদ্ধ তাই গো-সম্পদের খাদ্যের যোগান দিতে এবং দুগ্ধের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য শীত মৌসুমে মিল্কসেড এরিয়া হিসেবে খ্যাত শাহজাদপুর, বোনয়ারি নগর ফরিদপুর, সাঁথিয়া, উল্লাপাড়ার চলনবিলের একটি বৃহৎ অংশে হাজার হাজার হেক্টর জমিতে গো-খাদ্যের জন্য চাষ করা হয় মাশকালাই।
বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি না হওয়া এবং প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে এবারে শীত মৌসুমে কৃষকের বপন করা মাশকালাইয়ে আক্রমণ করেছে কাটই পোকা।
কীটনাশক দিয়েও কোন প্রকার ফল পাচ্ছে না কৃষক। তাই কৃষকের দুঃশ্চিন্তা মাশকালাই ও গো-খাদ্যে নিয়ে। এমনিতেই সারা বছর ফিড সহ বিভিন্ন গো-খাদ্য চরামূল্যে কিনতে হয়। সে তুলনায় সস্তা ও পুষ্টি সমৃদ্ধ গো-খাদ্য মাশকালাইয়ের উপর নির্ভর করে শীত মৌসুমে গরুর স্বাস্থ্য ও খাদ্যের যোগানের জন্য এক বড় ভূমিকা রাখে।
জানা গেছে, শাহজাদপুর পৌর এলাকার দ্বাবারিয়া, বাড়াবিল, নলুয়া, রূপপুর নতুনপাড়া, প্রাণনাথপুর, এবং পোতাজিয়া ইউনিয়নের আঙ্গারু, বি-আঙ্গারু, রেশমবাড়ি, চুলধরি, ভাইমারা, খুকনী ইউনিয়ন, সোনাতনী ইউনিয়ন, গালা ইউনিয়ন, নরিনা ইউনিয়ন, কায়েমপুর ইউনিয়ন, পোরজনা ইউনিয়ন, জালালপুর ইউনিয়ন ও রূপবাটি ইউনিয়ন সহ উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়নে  প্রায় ৫ হাজারের অধিক হেক্টর জমিতে মাশকালাই বপন করা হয়। কার্তিক-অগ্রহায়ন মাসে পুষ্টিকর গো-খাদ্য মাশকালাই বপন করা হয় জমিতে। এদিকে, গত অক্টোবর মাসে অসময় বৃষ্টি হওয়ার কারণে হাজার হাজার হেক্টর জমির বীজ নষ্ট হয়ে যায়। এতে করে কৃষকেরা মহা সংকটে পড়ে। এরপর পুনরায় আবার মাশকালাই চাষের জন্য বীজ বপন করলে পোকার আক্রমণে হাজার হাজার বিঘার মাশকালাই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যার কারণে কৃষক ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন।
এ বিষয়ে পৌর এলাকার দ্বাবারিয়া গ্রামের কৃষক মজনু মিয়া ও মানিক ফকির, ফরিদ পাঙ্গাসীর জোহা, বাঘাবাড়ি এলাকার আব্দুল সিদ্দিক, রেশমবাড়ির নয়ন মাস্টার, বাড়াবিলের নুরু মন্ডল জানান, গরুর অন্যতম পুষ্টিকর খাদ্য এই মাশকালাই। বিঘাতে প্রায় ১৪/১৫ হাজার টাকা খরচ হয় মাশকালাই চাষে। এতে বারবার কীটনাশক ব্যবহার করা হলে দুগ্ধ কমে যাওয়া এবং গরুর মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায় বলে তারা জানান। এ বিষয়ে তারা কোন ব্যবস্থা না পেয়ে ক্ষোভে-বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে। শাহজাদপুর উপজেলায় প্রায় কয়েক লক্ষ গরু রয়েছে। মিল্কভিটা, প্রাণ, আড়ং সহ দেশের শিশু খাদ্য সরবরাহকারী প্রায় প্রতিটি কোম্পানিরই দুগ্ধ সংগ্রহ কেন্দ্র  রয়েছে শাহজাদপুর সহ এই এলাকায়। দেশের একটি বৃহৎ তরল দুধের চাহিদা মেটে শাহজাদপুর মিল্কসেড এরিয়া থেকে। গরু এ অঞ্চলের কৃষকের আয়ের অন্যতম একটি উৎস বলে তারা জানান। শাহজাদপুর উপজেলার কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা আব্দুল আল মামুন জানান, শাহজাদপুর উপজেলায় প্রায় ৫ হাজার ৭০ হেক্টর জমিতে মাশকালাই বপন করা হয় । এর মধ্যে বীজ হিসেবে ৩শ’ হেক্টর । ইতিমধ্যেই কাটই পোকা আক্রমণ ঠেকাতে বিভিন্ন ইউনিয়নে নাইট্রো ও ফেরোমন সার দেওয়া হয়েছে। আমরা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে কৃষকদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ।
Share

Comments

comments

Close