আজ: ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ইং, মঙ্গলবার, ৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী, দুপুর ১:৫৩
সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ আসামি হাজির করতে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির নির্দেশ

আসামি হাজির করতে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির নির্দেশ


পোস্ট করেছেন: নিউজ ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: 10/16/2019 , 3:04 pm | বিভাগ: জেলা সংবাদ


Spread the love

বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি ও টিকটক হৃদয়ের জামিন শুনানির আবেদন করা হলে মূল নথি জজ কোর্টে থাকায় জামিন শুনানি হয়নি। একই সাথে এ মামলার ছয় আসামির জামিন আবেদন শিশু আদালতে প্রেরণ করার পাশাপাশি পলাতক এক আসামিকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. ইয়াসিন আরাফাত এ আদেশ দেন। অন্যদিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আল কাইয়ুম নামের অপর এক প্রাপ্তবয়স্ক আসামির জামিন নামঞ্জুর করেছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আসাদুজ্জামান।

এ বিষয়ে এ মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী মো. মজিবুল হক কিসলু বলেন, রিফাত হত্যা মামলার ধার্য তারিখে বরগুনা জেলা কারাগারে থাকা আট আসামিকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ ছাড়াও এ মামলায় জামিনে থাকা আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিও আদালতে হাজির হন।

তিনি আরো বলেন, ধার্য তারিখে আদালতে এ মামলার প্রধান আসামি রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজির জামিন আবেদন করা হয়। কিন্তু মামলার মূল নথি জেলা জজ আদালতে থাকায় শুনানি করা যায়নি। এ ছাড়াও এ মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক রাশিদুল হাসান রিশান ফরাজি, রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার, আবু আব্দুল্লাহ, তানভীর হোসেন, ওয়ালিউল্লাহ ওলি এবং মারুফ মল্লিকের জামিন আবেদন করা হয়। পরে আদালত তাদের জামিন আবেদন শুনানির জন্য শিশু আদালতে প্রেরণ করেন। শিশু আদালতে নথি না থাকায় সেখানেও জামিন শুনানি সম্ভব হয়নি।

মজিবুল হক কিসলু আরো বলেন, এ মামলার পলাতক অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. নাইমকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সাথে এ মামলার প্রাপ্তবয়স্ক তিন নম্বর আসামি মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাতের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে দায়ের করা একটি হত্যাচেষ্টা মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে।

গত ২৬ জুন রিফাত হত্যাকাণ্ড সংঘঠিত হয়। এরপর গত ১ সেপ্টেম্বর বহুল আলোচিত এ মামলায় ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। ২৪ আসামির মধ্যে ১৫ আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর আদালত পলাতক আসামিদের মালামাল জব্দের আদেশ দিলে সাতজন পলাতক আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করে। এ মামলায় অভিযুক্ত মো. নাইম ও মুসা নামের দুই আসামি এখনো পলাতক রয়েছে।

Share

Comments

comments

Close